সন্তানঃ স্বপ্নের পরিচর্যা

৳ 150.00

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শিশু প্রতিপালন বিষয়ে কথা বলতে আমি প্রথমেই বাবা-মাদের একটি প্রশ্ন করতাম : ‘আপনার জীবনে অনুকরণীয় আদর্শ কে? আপনাদের কতজনের কাছে আপনার আদর্শ ব্যাক্তিত্ব হলেন আপনার বাবা কিংবা মা সত্যি বলতে, সতকরা পাঁচ ভাগের বেশি ভূমিকা রেখেছেন ও মানুষের কাছে আমি এর কোনো ইতিবাচক উওর পাইনি। অর্থাৎ বাকি পঁচানব্বই ভাগ মানুষের আদর্শ ব্যাক্তিত্ব তাদের বাবা -মা নন! অথচ এ বাবা – মায়েরাই তো তাদের প্রতিপালনের সবচেয়ে বেশি আত্মত্যাগ করেছেন! বিষয়টা সত্যিই দুঃখজনক।এমনটি কখনোই কাম্য নয়। তবে,পরিণামে এর দায়ভার কিন্তু আমাদের নিজেদেরই।আশা করি, আমার এ বইটি আপনাকে সে পঁচানব্বই ভাগ হতভাগ্য পিতা- মাতার দলভুক্ত হওয়া থেকে রেহাই দেবে ইনশা- আল্লাহ। মুসলিম বিশ্বে কাজ করতে গিয়ে বারবারই আমি পিতা- মাতাদের একটি প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছি-‘শিশুর প্রতিপালন কীভাবে করা উচিত ‘? তরুন বাবা- মায়েরা তাদের সন্তানদের সত্যিকার মুসলিম হিসেবে গড়ে তোলার ব্যাপারে খুবই আগ্রহী থাকেন।তারা চান যেন, সন্তানরা তাদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবের সংকলনই হলো আমার এ বইটি। প্রত্যেক বাবা-মা’রই উচিত সন্তানের জন্য অনুকরণীয় আদর্শ হওয়া। বাবা -মাকে আদর্শ হিসেবে পাওয়া সন্তানের একটি অধিকার।শুধু পার্থিব শিক্ষা নয়; বরং পরকালে সাফল্য লাভের উপায়ও তারা সন্তানদেরকে শিক্ষঅ দেবেন। এ দায়িত্বটাও তাদেরই। আপনি যদি চান আর না চান,আপনিই আপনার সন্তানের অনুকরণীয় আদর্শ।আপনি কেমন আদর্শ হতে চান,তা সম্পূর্ণ নির্ভর করছে আপনার ওপরই।আপনি কি তাদের দৃষ্টিতে শ্রদ্ধার পাএ হতে চান নাকি ঘৃণার , সে সিদ্ধান্ত আপনাকে আপনাকেই নিতে হবে।বাচ্চারা আপনাকে দেখছে প্রতিনিয়ত। আপনি সন্তানদের যত ভালো ভালো উপদেশই দেন না কেন, আপনি নিজে কী করেন, সেটাই তাদের অনুকরণের বিষয়।সন্তান থাকলে বাবা -মা’র ব্যাক্তিগত জীবন বলে কিছু থাকে না।আপনি যা-ই করেন সব সময়ই তা বাচ্চাদের নজর কাড়বে। তারা আপনার প্রতিটি কাজকে পর্যবেক্ষন করবে,শিখবে এবং অনুকরন করবে। আপনার কথা এবং কাজে যদি অসামঞ্জস্য থাকে তাহলে সন্তানের কাছে আপনি গ্রহনযোগ্যতা হারাবেন। আল্লাহ আপনাকে পাঠিয়েছেন সন্তানের পথপ্রদর্শক হিসেবে। আর এ কারনেই ইসলামে পিতা-মাতাকে এত বেশি মর্যাদা দেওয়া হয়েছে।মুসলিমদের জন্য তাদের সন্তানদেরকে নিম্নাক্ত পাঁচটি মোলিক বিষয়ের শিক্ষা দেওয়া খুবই প্রয়োজন: ১.ইসলামের ধারক এবং বাহক হিসেবে তার পরিচয় প্রদান; ২.আল্লাহর সাথে সম্পর্ক – বিশেষত আল্লাহর একত্ববাদ ও তাওহীদুল ইবাদাত; ৩. রাসুলুল্লাহ সাঃ এর সাথে সম্পর্ক – নবির সুন্নাহ এবং তাঁর উম্মাহ হিসেবে তার পরিচয় দান ; ৪. আল্লাহর সাহায্য লাভের উপায় -সলাত এবং দু’আ; ৫. দান এবং দা’ওয়াতের মাধ্যামে অসহায় মানুষের উপকার সাধন। আমি কামনা করি,এ বইয়ের পাঠকবৃন্দের সন্তান -সন্ততিরা যেন তাদের ইহকালীন জীবনের প্রশান্তি ও পরকালীন জীবনের অবিরত কল্যান লাভের উৎসে পরিনত হয়।

বই: সন্তান স্বপ্নের পরিচর্যা

লেখক :মির্জা ইয়াওয়ার বেইগ

Out of Stock

Out of stock

Category:
 

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “সন্তানঃ স্বপ্নের পরিচর্যা”

Your email address will not be published. Required fields are marked *